Today: March 3, 2024 7:25 am

ডলারকে কতটা কাবু করবে চীন-রাশিয়া-সৌদি-ইরান মিলে

ইউক্রেন–রাশিয়া যুদ্ধ; সম্প্রতি মস্কোতে অনুষ্ঠিত ভ্লাদিমির পুতিন ও সি চিন পিংয়ের বৈঠক এবং ইরান ও সৌদি আরবকে এক টেবিলে বসানোর বিষয়ে চীনের দৃশ্যমান সাফল্য—এ বিষয়গুলো যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্বজোড়া একচ্ছত্র খবরদারিকে, বিশেষ করে মার্কিন ডলারের একচেটিয়া প্রভাবকে হুমকির মুখে ফেলে দেবে কি না, সেই প্রশ্নটিকে আরও একবার সামনে নিয়ে এসেছে।

ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন ও দক্ষিণ আফ্রিকার সমন্বয়ে গড়ে তোলা সংগঠন ব্রিকস-এর ভবিষ্যৎ মূল্যায়ন করে সম্প্রতি প্রকাশিত আমার বৈশ্বিক নীতিবিষয়ক একটি লেখার প্রতিক্রিয়ায় আমি এ ধরনের মন্তব্যের সম্মুখীন হয়েছি।

ব্রিকস নামক গ্রুপটি বর্তমানে ইরান ও সৌদি আরবসহ আরও কয়েকটি দেশকে অন্তর্ভুক্ত করার কথা ভাবছে। বিষয়টি ব্রিকসের সদস্যপদ দেওয়ার প্রক্রিয়া এবং সংগঠনটির নিজস্ব ব্যাংক ‘নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক’-এর ভূমিকা নিয়ে বড় ধরনের প্রশ্ন তুলতে পারে। তবে তার চেয়ে বড় প্রশ্ন হলো, অধিকতর বড় ও ব্যাপকতর প্রভাবশালী ব্রিকস-প্লাস সত্যিই কি ডলারকে হুমকির মুখে ফেলতে পারে কি না।
বৈশ্বিক অর্থব্যবস্থায় ডলারের ভূমিকা হুমকি মুখে পড়া নতুন কিছু না। ১৯৮০–এর দশকে আমি আমার ক্যারিয়ার শুরু করার পর থেকে প্রায়ই এই জিনিস দেখে আসছি। তবে এটি অবশ্যম্ভাবী যে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির অবস্থান থেকে যুক্তরাষ্ট্র যদি কোনো দিন পড়ে যায়, তাহলে ডলার অবস্থাও প্রশ্নবিদ্ধ হবে। বিংশ শতকের প্রথমার্ধে পাউন্ড স্টার্লিং-এর ক্ষেত্রেও একই কথা সত্য ছিল (যদিও পাউন্ড তার বিশ্বব্যাপী প্রভাব থেকে একেবারে ছিটকে যায়নি)।

ডলারের দীপ্তি ফিকে হয়ে যাওয়াটা এক দিক থেকে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য খারাপ কিছু হবে না। কারণ, বিশ্বের প্রধান রিজার্ভ মুদ্রা ইস্যু করতে গিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে যে দায়দায়িত্ব নিতে হয় তার অনেকটাই এর ফলে লাঘব হবে।

উৎস ঃ- প্রথমআলো

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *